ঢাকা ১১:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo ময়মনসিংহে মানসিক রোগী রাজিয়া খাতুুন হত্যার রহস্য উদঘাটন ০৩ জন গ্রেফতার Logo শ্রীমঙ্গলে অর্ধশতাধিক ছিন্নমূলে ঈদ উপহার দিলো ওয়ার্ক ফর হিউম্যানিটি Logo ফাজিলপুরে হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্রদের জন্য মুসলিম এইড বাংলাদেশ (MAB) এর কুরবানি কর্মসূচী-২০২৪ Logo শুকনো জায়গার অভাবে, সিলেটে অনেকেই কোরবানী দিতে পারছেন না Logo পুলিশ পরিচয়ে ছিনতায়ের অভিযোগে সাবেক সেনা সদস্য গ্রেফতার Logo কালিয়াকৈরে ডাঃ ডালেম চন্দ্র বর্মনের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত Logo ঈদের আনন্দে প্রবাসীরা কতটুকু হাসি খুশি থাকে Logo ঈদুল আযাহার নামাজ আদায় চকশৈল্যা বাজার ঈদগাহ মাঠে। Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শেরপুরে পবিত্র ঈদুল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও আর্থিক সহায়তা দিলেন ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ধান ক্ষেত থেকে এক ব্যবসায়ীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার

শহীদুল ইসলাম শহীদ
  • আপডেট সময় : ০২:২৬:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মার্চ ২০২৪ ৫৪ বার পড়া হয়েছে

শহীদুল ইসলাম শহীদ,
স্টাফ রিপোর্টারঃ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের মাঠের হাট শ্মশান চৌকিদারের ঘাট এলাকার ধানক্ষেত হতে আব্দুল আউয়াল মিয়া (২৪) নামের এক ব্যবসায়ীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।
বৃহস্পতিবার স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ধানক্ষেত হতে গলাকাটাসহ গোটা শরীরে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে। আব্দুল আউয়াল গাইবান্ধা সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের বর্মত গ্রামের হাফিজার রহমানের ছেলে। সে দীর্ঘদিন হতে উপজেলার মাঠেরহাট চৌরাস্তা মোড়ে মোবাইল ব্যাংকিং ও ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা করে আসছিল। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাবাদের জন্য ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলেন- মো. জাকির হোসেন, মো. জুয়েল মিয়া, মো. রাসেল মিয়া, মো. লিটন মিয়া ও মো. খলিল মিয়া।
জানা গেছে, বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত আব্দুল আউয়াল দোকান হতে বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন খোঁজা খুজি শুরু করে। পরদিন বৃহস্পতিবার ধানক্ষেতে সেচ মটারের পানি দিতে গিয়ে স্থানীয় একজন কৃষক মরদেহটি ধানক্ষেতে পরে থাকতে দেখে চিৎকার দেয়। স্থানীয়রা ছুটে এসে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।
নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক নেতা জানান, মোবাইলে ক্যাসিনো খেলার টাকা পয়সার লেনদেনের হতো ওই ফ্লেক্সিলোডের দোকান হতে। তাদের ধারনা ক্যাসিনো খেলার টাকা লেনদেন নিয়ে হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হতে পারে।
নিহতের পিতা মো. হাফিজার রহমান জানান, প্রতিদিন রাত ১১টা হতে ১২টার মধ্যে বাড়িতে আসে সে। বুধবার রাত ২টা পর্যন্ত বাড়িতে না ফেরায় দোকানে খোজতে গিয়ে দেখি দোকান এবং তার নিকট থাকা সকল মোবাইল ফোন বন্ধ। সারারাত খোজার পর সকালে তার লাশ পাই। তিনি তার সন্তানের হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন।
থানার ওসি মো. মাহবুব আলম জানান, মরদেহটি ময়না তদন্তের মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকান্ডটির প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের জন্য পুলিশ তদন্ত করছে। ইতিমধ্যে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে, তদন্তের স্বার্থে বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।

ট্যাগস :
Translate »

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ধান ক্ষেত থেকে এক ব্যবসায়ীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০২:২৬:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মার্চ ২০২৪

শহীদুল ইসলাম শহীদ,
স্টাফ রিপোর্টারঃ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের মাঠের হাট শ্মশান চৌকিদারের ঘাট এলাকার ধানক্ষেত হতে আব্দুল আউয়াল মিয়া (২৪) নামের এক ব্যবসায়ীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।
বৃহস্পতিবার স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ধানক্ষেত হতে গলাকাটাসহ গোটা শরীরে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে। আব্দুল আউয়াল গাইবান্ধা সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের বর্মত গ্রামের হাফিজার রহমানের ছেলে। সে দীর্ঘদিন হতে উপজেলার মাঠেরহাট চৌরাস্তা মোড়ে মোবাইল ব্যাংকিং ও ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা করে আসছিল। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাবাদের জন্য ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলেন- মো. জাকির হোসেন, মো. জুয়েল মিয়া, মো. রাসেল মিয়া, মো. লিটন মিয়া ও মো. খলিল মিয়া।
জানা গেছে, বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত আব্দুল আউয়াল দোকান হতে বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন খোঁজা খুজি শুরু করে। পরদিন বৃহস্পতিবার ধানক্ষেতে সেচ মটারের পানি দিতে গিয়ে স্থানীয় একজন কৃষক মরদেহটি ধানক্ষেতে পরে থাকতে দেখে চিৎকার দেয়। স্থানীয়রা ছুটে এসে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।
নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক নেতা জানান, মোবাইলে ক্যাসিনো খেলার টাকা পয়সার লেনদেনের হতো ওই ফ্লেক্সিলোডের দোকান হতে। তাদের ধারনা ক্যাসিনো খেলার টাকা লেনদেন নিয়ে হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হতে পারে।
নিহতের পিতা মো. হাফিজার রহমান জানান, প্রতিদিন রাত ১১টা হতে ১২টার মধ্যে বাড়িতে আসে সে। বুধবার রাত ২টা পর্যন্ত বাড়িতে না ফেরায় দোকানে খোজতে গিয়ে দেখি দোকান এবং তার নিকট থাকা সকল মোবাইল ফোন বন্ধ। সারারাত খোজার পর সকালে তার লাশ পাই। তিনি তার সন্তানের হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন।
থানার ওসি মো. মাহবুব আলম জানান, মরদেহটি ময়না তদন্তের মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকান্ডটির প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের জন্য পুলিশ তদন্ত করছে। ইতিমধ্যে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে, তদন্তের স্বার্থে বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।