ঢাকা ১২:১২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo ঈদের আনন্দে প্রবাসীরা কতটুকু হাসি খুশি থাকে Logo ঈদুল আযাহার নামাজ আদায় চকশৈল্যা বাজার ঈদগাহ মাঠে। Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শেরপুরে পবিত্র ঈদুল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও আর্থিক সহায়তা দিলেন ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের নির্বাহী সম্পাদক ও এশিয়ান টিভি ভালুকা প্রতিনিধি”মো:কামরুল ইসলাম “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “প্রেসক্লাব ভালুকা “সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের সহ সম্পাদক “সেরাজুর ইসলাম সিরাজ “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo দৈনিক বর্তমান সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক “সুমন মিয়া “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের প্রকাশক ও সম্পাদক”মামুন হাসান বিএ”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo ঈদ আগাম বুকিং কম চায়ের রাজ্য শ্রীমঙ্গলে

ত্রিশালে অবাধ্য সন্তানের যাবজ্জীবন সাজা চাইলেন পিতা

জাকিয়া বেগম, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : ০৮:৩০:৩৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৭৬ বার পড়া হয়েছে

জাকিয়া বেগম, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের ৭৬ বছর বয়সী বৃদ্ধ শামছুদ্দিন তার ছেলে মাহাবুল (২৮) এর যাবজ্জীবন সাজা চেয়ে কাঁন্নারত অবস্থায় ত্রিশাল থানায় হাজির হয়ে মামলা দায়ের করার পর ঐ অবাধ্য সন্তান কে গ্রেপ্তারপূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ।ছেলে মাহাবুল বৃদ্ধ অসুস্থ্য পিতা মাতার ভরণপোষণ তো দূরের কথা তার স্ত্রী সন্তানদেরকেও ভরণপোষণ না দিয়ে বৃদ্ধ বাবার মাথার উপর ছেড়ে দিয়েছে পরিবারের সকলের দায়িত্ব। ছেলের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এ পর্যন্ত একাধিকবার। শুধু তাই নয় অশ্লিল ভাষায় গালিগালাজ, বিভিন্নভাবে লাঞ্ছিত, শারিরীক ও মানষিক নির্যাতন চালাতো বিভিন্ন সময়। স্থানীয় বিভিন্ন স্থানে এর বিচার চাওয়ায় ছেলের হুমকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছিলেন হতভাগ্য এই পিতা।

অবাধ্য ছেলের উপযোক্ত বিচার চেয়ে বৃদ্ধ বাবা শামছুদ্দিন (০৪ ফেব্রুয়ারি) ত্রিশাল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে থানা পুলিশ বিষয়টি আমলে নিয়ে (পিতা মাতার ভরণপোষণ আইন- ২০১৩ এর- ৫ পিতা মাতার ভরণপোষণ না করিয়া বিভিন্নভাবে অন্যায় করার অপরাধ) ত্রিশাল থানার মামলা নং- ৩/১৯ গুরুত্বসহকারে রুজু করার পর সহকারী পুলিশ সুপার (ত্রিশাল সার্কেল) অরিত সরকার ও অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন এর নির্দেশে ৩ঘন্টার মধ্যে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মঞ্জুরুল হক বিভিন্নস্থানে অভিযান পরিচালনা করে ছেলে মোঃ মাহাবুল কে স্থানীয়দের সহযোগিতায় গ্রেফতার পূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও মামলা সুত্রে জানা যায়, ৭৬ বছর বয়সী বৃদ্ধ শামছুদ্দিন একজন গরীব অসহায় ব্যক্তি। বৃদ্ধ বয়সে বাবা মাকে ছেলের দেখা-শুনা ও ভরন-পোষণ করার কথা থাকলেও সে ভরন-পোষন না করিয়া উল্টো বাবা মার নিকট হতে প্রতিনিয়তই টাকা পয়সা জোর জুলুম করে নিয়ে যায়। বাধা নিষেধ করিলে নানাভাবে অত্যাচার ও মারধর করে।

(৩০ জানুয়ারি) সকালে নিজবাড়ি চৌচালা টিনের বসত ঘরের ভিতর মাহাবুল এর নিকট তার পিতা ভরন পোষনের জন্য কিছু টাকা চাইলে উত্তেজিত হইয়া অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে করতে বসত ঘরে থাকা বিভিন্ন জিনিসপত্র বাইরাইয়া ভাংচুর করে বসত ঘর হইতে বের হইয়া যাইতে বলে তার বাবা মাকে। পরে বাহির হতে না চাইলে টানা হেছড়া করে কিল-ঘুষি মারতে মারতে বসত ঘর হইতে বাহির করে করে দেওয়ার পাশাপাশি বসত ঘরের দরজা বন্ধ করিয়া দেয় এবং খুন জখমের হুমকি সহ বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। আশপাশের স্থানীয় লোকজন শামসুদ্দিন ও স্ত্রী ফাতেমা খাতুনকে উদ্ধার করে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।

ট্যাগস :
Translate »

ত্রিশালে অবাধ্য সন্তানের যাবজ্জীবন সাজা চাইলেন পিতা

আপডেট সময় : ০৮:৩০:৩৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

জাকিয়া বেগম, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের ৭৬ বছর বয়সী বৃদ্ধ শামছুদ্দিন তার ছেলে মাহাবুল (২৮) এর যাবজ্জীবন সাজা চেয়ে কাঁন্নারত অবস্থায় ত্রিশাল থানায় হাজির হয়ে মামলা দায়ের করার পর ঐ অবাধ্য সন্তান কে গ্রেপ্তারপূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ।ছেলে মাহাবুল বৃদ্ধ অসুস্থ্য পিতা মাতার ভরণপোষণ তো দূরের কথা তার স্ত্রী সন্তানদেরকেও ভরণপোষণ না দিয়ে বৃদ্ধ বাবার মাথার উপর ছেড়ে দিয়েছে পরিবারের সকলের দায়িত্ব। ছেলের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এ পর্যন্ত একাধিকবার। শুধু তাই নয় অশ্লিল ভাষায় গালিগালাজ, বিভিন্নভাবে লাঞ্ছিত, শারিরীক ও মানষিক নির্যাতন চালাতো বিভিন্ন সময়। স্থানীয় বিভিন্ন স্থানে এর বিচার চাওয়ায় ছেলের হুমকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছিলেন হতভাগ্য এই পিতা।

অবাধ্য ছেলের উপযোক্ত বিচার চেয়ে বৃদ্ধ বাবা শামছুদ্দিন (০৪ ফেব্রুয়ারি) ত্রিশাল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে থানা পুলিশ বিষয়টি আমলে নিয়ে (পিতা মাতার ভরণপোষণ আইন- ২০১৩ এর- ৫ পিতা মাতার ভরণপোষণ না করিয়া বিভিন্নভাবে অন্যায় করার অপরাধ) ত্রিশাল থানার মামলা নং- ৩/১৯ গুরুত্বসহকারে রুজু করার পর সহকারী পুলিশ সুপার (ত্রিশাল সার্কেল) অরিত সরকার ও অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন এর নির্দেশে ৩ঘন্টার মধ্যে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মঞ্জুরুল হক বিভিন্নস্থানে অভিযান পরিচালনা করে ছেলে মোঃ মাহাবুল কে স্থানীয়দের সহযোগিতায় গ্রেফতার পূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও মামলা সুত্রে জানা যায়, ৭৬ বছর বয়সী বৃদ্ধ শামছুদ্দিন একজন গরীব অসহায় ব্যক্তি। বৃদ্ধ বয়সে বাবা মাকে ছেলের দেখা-শুনা ও ভরন-পোষণ করার কথা থাকলেও সে ভরন-পোষন না করিয়া উল্টো বাবা মার নিকট হতে প্রতিনিয়তই টাকা পয়সা জোর জুলুম করে নিয়ে যায়। বাধা নিষেধ করিলে নানাভাবে অত্যাচার ও মারধর করে।

(৩০ জানুয়ারি) সকালে নিজবাড়ি চৌচালা টিনের বসত ঘরের ভিতর মাহাবুল এর নিকট তার পিতা ভরন পোষনের জন্য কিছু টাকা চাইলে উত্তেজিত হইয়া অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে করতে বসত ঘরে থাকা বিভিন্ন জিনিসপত্র বাইরাইয়া ভাংচুর করে বসত ঘর হইতে বের হইয়া যাইতে বলে তার বাবা মাকে। পরে বাহির হতে না চাইলে টানা হেছড়া করে কিল-ঘুষি মারতে মারতে বসত ঘর হইতে বাহির করে করে দেওয়ার পাশাপাশি বসত ঘরের দরজা বন্ধ করিয়া দেয় এবং খুন জখমের হুমকি সহ বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। আশপাশের স্থানীয় লোকজন শামসুদ্দিন ও স্ত্রী ফাতেমা খাতুনকে উদ্ধার করে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।