ঢাকা ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo ঈদের আনন্দে প্রবাসীরা কতটুকু হাসি খুশি থাকে Logo ঈদুল আযাহার নামাজ আদায় চকশৈল্যা বাজার ঈদগাহ মাঠে। Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শেরপুরে পবিত্র ঈদুল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও আর্থিক সহায়তা দিলেন ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের নির্বাহী সম্পাদক ও এশিয়ান টিভি ভালুকা প্রতিনিধি”মো:কামরুল ইসলাম “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “প্রেসক্লাব ভালুকা “সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের সহ সম্পাদক “সেরাজুর ইসলাম সিরাজ “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo দৈনিক বর্তমান সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক “সুমন মিয়া “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের প্রকাশক ও সম্পাদক”মামুন হাসান বিএ”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo ঈদ আগাম বুকিং কম চায়ের রাজ্য শ্রীমঙ্গলে

ধনবাড়ীতে নানার কর্তৃক স্কুল পড়ুয়া নাতনী ধর্ষণ‌, নাতনী ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা

মোর্শেদ খান, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৩:১০:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুন ২০২৪ ১৩ বার পড়া হয়েছে

মোর্শেদ খান, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে ছয় মাস আগে ফজলুল হক (৫৫) নামের মধ্যবয়সী এক ব্যক্তির ধর্ষণে স্কুল পড়ুয়া এক ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সম্পর্কে ধর্ষণকারী ওই স্কুল ছাত্রীর দুঃসম্পর্কের নানা হন।

উপজেলার যদুনাথপুর ইউনিয়নের সাত্তারকান্দি চরপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ফজুলল হক একই গ্রামের মৃত জহুরুল হকের ছেলে। তিনি দুই সন্তানের জনক।

সম্প্রতি এ বিষয়টি জানাজানি হলে গা ঢাকা দিয়েছেন তিনি। ফজলুল হকের বিরুদ্ধে সংবাদকর্মীদের কাছে এক সাক্ষাৎকারে বিচার চেয়ে আইনি সহায়তা চেয়েছেন ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী ও তার পরিবার। এ ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

ভুক্তভোগীর স্বজনদের অভিযোগ, ফজলুল হকের পক্ষে স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি এ ঘটনাটি ৭ লাখ টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

ভুক্তভোগী ওই কিশোরী জানায়- অভিযুক্ত ফজুলল হক সম্পর্কে প্রতিবেশী নানা। তিনি বিভিন্ন সময়ে চিপস, চকলেট খাইয়ে ও টাকার লোভ দেখিয়ে নানা প্রলোভনে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

এ ঘটনাটি পরিবার বা অন্য কাউকে না বলার জন্য মেরে ফেলার হুমকি দেয় ফজলুল হক। ভয়ে কিশোরী এ নিয়ে কাউকে কিছু জানায়নি।

তিনি আরও জানান- অন্তঃসত্ত্বার বিষয়টি টের পেয়ে অভিযুক্ত ফজলুল হক তাকে গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। বর্তমানে সে ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা না করার হুমকিতে ওই ছাত্রী ও তার বাবা-মা বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এ ঘটনায় উপযুক্ত বিচার চায় সে।

কিশোরীর বাবা বলেন- আমার মেয়েটি পাশের একটি স্কুলে ৭ম শ্রেণিতে পড়ে। ফজলুল হক আমার ভাইয়ের সম্পর্কে উকিল শ্বশুর।

সেই সুবাদে আমার মেয়ের সম্পর্কে নানা হওয়ায় আমাদের বাড়িতে তার যাতায়াত। আমি কাজকর্মে বাড়ির বাইরে যাই।

ওর মাও বাড়ির বাইরে কাজে যাওয়ার সুযোগ নিয়ে ফজলুল হক ফজু আমার মেয়ের যে ক্ষতি করেছে তার উপযুক্ত বিচার চাই।

তবে ওই কিশোরীর দাদা রমজান আলী ও দাদী আজিরন বেগমসহ এলাকাবাসী জানান- কিশোরী মেয়েটি ৬ মাসের গর্ভবতী এখন তার উপায় কী! ফজলুল হক পালিয়ে বেড়ালেও স্থানীয় প্রভাবশালী ও স্থানীয় কিছু মাতাব্বর তার পক্ষে কলকাঠি নাড়ছেন।

এছাড়া তারা মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে সময় নষ্ট করছেন। সেই সঙ্গে ৭ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য পাঁয়তারা করছেন।

ভুক্তভোগী পরিবারকে মামলা করতে যেতে দিচ্ছে না তারা। ভয়ভীতির মধ্যে আছে পরিবারটি। প্রশাসনের কাছে এরকম ন্যাক্কারজক ঘটনার ন্যায়বিচার দাবি করেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান মিলন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন- এ ঘটনায় অভিযুক্ত ফজলুল হকের কঠিন শাস্তি হওয়া দরকার।

এ ব্যাপারে ধনবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, এমন ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনিগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Translate »

ধনবাড়ীতে নানার কর্তৃক স্কুল পড়ুয়া নাতনী ধর্ষণ‌, নাতনী ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা

আপডেট সময় : ০৩:১০:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুন ২০২৪

মোর্শেদ খান, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে ছয় মাস আগে ফজলুল হক (৫৫) নামের মধ্যবয়সী এক ব্যক্তির ধর্ষণে স্কুল পড়ুয়া এক ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সম্পর্কে ধর্ষণকারী ওই স্কুল ছাত্রীর দুঃসম্পর্কের নানা হন।

উপজেলার যদুনাথপুর ইউনিয়নের সাত্তারকান্দি চরপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ফজুলল হক একই গ্রামের মৃত জহুরুল হকের ছেলে। তিনি দুই সন্তানের জনক।

সম্প্রতি এ বিষয়টি জানাজানি হলে গা ঢাকা দিয়েছেন তিনি। ফজলুল হকের বিরুদ্ধে সংবাদকর্মীদের কাছে এক সাক্ষাৎকারে বিচার চেয়ে আইনি সহায়তা চেয়েছেন ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী ও তার পরিবার। এ ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

ভুক্তভোগীর স্বজনদের অভিযোগ, ফজলুল হকের পক্ষে স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি এ ঘটনাটি ৭ লাখ টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

ভুক্তভোগী ওই কিশোরী জানায়- অভিযুক্ত ফজুলল হক সম্পর্কে প্রতিবেশী নানা। তিনি বিভিন্ন সময়ে চিপস, চকলেট খাইয়ে ও টাকার লোভ দেখিয়ে নানা প্রলোভনে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

এ ঘটনাটি পরিবার বা অন্য কাউকে না বলার জন্য মেরে ফেলার হুমকি দেয় ফজলুল হক। ভয়ে কিশোরী এ নিয়ে কাউকে কিছু জানায়নি।

তিনি আরও জানান- অন্তঃসত্ত্বার বিষয়টি টের পেয়ে অভিযুক্ত ফজলুল হক তাকে গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। বর্তমানে সে ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা না করার হুমকিতে ওই ছাত্রী ও তার বাবা-মা বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এ ঘটনায় উপযুক্ত বিচার চায় সে।

কিশোরীর বাবা বলেন- আমার মেয়েটি পাশের একটি স্কুলে ৭ম শ্রেণিতে পড়ে। ফজলুল হক আমার ভাইয়ের সম্পর্কে উকিল শ্বশুর।

সেই সুবাদে আমার মেয়ের সম্পর্কে নানা হওয়ায় আমাদের বাড়িতে তার যাতায়াত। আমি কাজকর্মে বাড়ির বাইরে যাই।

ওর মাও বাড়ির বাইরে কাজে যাওয়ার সুযোগ নিয়ে ফজলুল হক ফজু আমার মেয়ের যে ক্ষতি করেছে তার উপযুক্ত বিচার চাই।

তবে ওই কিশোরীর দাদা রমজান আলী ও দাদী আজিরন বেগমসহ এলাকাবাসী জানান- কিশোরী মেয়েটি ৬ মাসের গর্ভবতী এখন তার উপায় কী! ফজলুল হক পালিয়ে বেড়ালেও স্থানীয় প্রভাবশালী ও স্থানীয় কিছু মাতাব্বর তার পক্ষে কলকাঠি নাড়ছেন।

এছাড়া তারা মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে সময় নষ্ট করছেন। সেই সঙ্গে ৭ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য পাঁয়তারা করছেন।

ভুক্তভোগী পরিবারকে মামলা করতে যেতে দিচ্ছে না তারা। ভয়ভীতির মধ্যে আছে পরিবারটি। প্রশাসনের কাছে এরকম ন্যাক্কারজক ঘটনার ন্যায়বিচার দাবি করেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান মিলন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন- এ ঘটনায় অভিযুক্ত ফজলুল হকের কঠিন শাস্তি হওয়া দরকার।

এ ব্যাপারে ধনবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, এমন ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনিগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।