ঢাকা ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo ঈদের আনন্দে প্রবাসীরা কতটুকু হাসি খুশি থাকে Logo ঈদুল আযাহার নামাজ আদায় চকশৈল্যা বাজার ঈদগাহ মাঠে। Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শেরপুরে পবিত্র ঈদুল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও আর্থিক সহায়তা দিলেন ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের নির্বাহী সম্পাদক ও এশিয়ান টিভি ভালুকা প্রতিনিধি”মো:কামরুল ইসলাম “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “প্রেসক্লাব ভালুকা “সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের সহ সম্পাদক “সেরাজুর ইসলাম সিরাজ “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo দৈনিক বর্তমান সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক “সুমন মিয়া “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের প্রকাশক ও সম্পাদক”মামুন হাসান বিএ”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo ঈদ আগাম বুকিং কম চায়ের রাজ্য শ্রীমঙ্গলে

নদী থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক

রিপন কান্তি গুণ, নেত্রকোনা প্রতিনিধি;
  • আপডেট সময় : ০৫:২৮:৪৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ ৬৪ বার পড়া হয়েছে

রিপন কান্তি গুণ, নেত্রকোনা প্রতিনিধি;
নিখোঁজের ৪ দিন পর পর ধর্মপাশা উপজেলার কংস নদ থেকে আঁখি মণি (২০) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই গৃহবধূর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী বিল্লাল মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ।

উপজেলার ঘুলুয়া গ্রাম সংলগ্ন কংস নদ থেকে বুধবার লাশটি উদ্ধার করা হয়। আঁখি মণি ঘুলুয়া গ্রামের ছোয়াব আলীর ছেলে বিল্লাল মিয়ার স্ত্রী ও নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার চন্দ্রপুর গ্রামের আয়নাল হকের মেয়ে। দেড় বছর আগে আঁখি ও বিল্লালের বিয়ে হয়েছিল।

স্থানীয় প্রতিবেশীদের কাছ থেকে জানাযায়, গত রবিবার সকালে স্বামীর বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় আঁখি। খবর পেয়ে আঁখির বাবা আয়নাল হক পরদিন সোমবার ধর্মপাশা থানায় এ ব্যাপারে সাধারণ ডায়েরি করেন।

ডায়েরিতে উল্লেখ করা হয়, গত ১৫ জানুয়ারি আঁখি স্বামীকে নিয়ে তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাবার বাড়িতে ৩ দিন কটানোর পর সেখান থেকে শশুর বাড়িতে ফেরত আসার আগে স্বামীর সাথে আঁখির কথা কাটাকাটি হয়। এতে আঁখির ছোটভাই মেহেদী হাসান বাধা দিলে আঁখিকে নিখোঁজ করার হুমকি দেয় বিল্লাল। ওইদিনই আঁখি স্বামীর বাড়িতে ফেরত আসে।

আঁখি শশুর বাড়িতে ফেরত আসার পর গত রবিবার সকালে স্বামী বিল্লাল আঁখির পরিবারকে ফোন করে আঁখিকে খোঁজে না পাওয়ার কথা জানায়। পরদিন আঁখির বাবা আয়নাল হক বিল্লালের বিরুদ্ধে আঁখিকে জীবিত বা হত্যা করে কোথাও নিখোঁজ করেছে মর্মে ধর্মপাশা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

এদিকে বুধবার সকালে বিল্লালের বাড়ির অদূরে কংসনদে আঁখির লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আঁখির মরদেহ উদ্ধার করে।

লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরির সময় সাথে ছিলেন, ধর্মপাশা উপজেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পপি আক্তার। তিনি বলেন, আঁখির পিঠে কালো দাগ রয়েছে। বুকের বাম পাশে ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। এছাড়া গলার সামনের অংশ ফোলা।

গৃহবধূর বাবা আয়নাল হক বলেন, টাকার জন্য আমার মেয়েকে নির্যাতন করত বিল্লাল। এর আগে দুইবার টাকা দিয়েছি। এবার টাকা দিতে পারিনি। তাই সে আমার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে নদীতে ফেলে দিয়ে নিখোঁজের নাটক সাজিয়েছে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

গৃহবধূর স্বামী বিল্লালের বড় ভাই খায়রুল মিয়া বলেন, ঘটনা কিভাবে ঘটেছে আমরা জানি না। যেহেতু আমি বাড়িতে থাকি না। তবে আমার ভাই যদি কোন কিছু ঘটিয়ে থাকে তাহলে তাঁর বিচার হোক এটাই আমি চাই।

ধর্মপাশা থানার ওসি মো. শামছুদোহা (পিপিএম) জানান, মৃত্যুর ঘটনাটি রহস্যজনক। ময়নাতদন্তের লাশ জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এদিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর স্বামী বিল্লালকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। দ্রুত ঘটনার রহস্য উদঘাটন করার বিষয়ে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

ট্যাগস :
Translate »

নদী থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক

আপডেট সময় : ০৫:২৮:৪৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৪

রিপন কান্তি গুণ, নেত্রকোনা প্রতিনিধি;
নিখোঁজের ৪ দিন পর পর ধর্মপাশা উপজেলার কংস নদ থেকে আঁখি মণি (২০) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই গৃহবধূর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী বিল্লাল মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ।

উপজেলার ঘুলুয়া গ্রাম সংলগ্ন কংস নদ থেকে বুধবার লাশটি উদ্ধার করা হয়। আঁখি মণি ঘুলুয়া গ্রামের ছোয়াব আলীর ছেলে বিল্লাল মিয়ার স্ত্রী ও নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার চন্দ্রপুর গ্রামের আয়নাল হকের মেয়ে। দেড় বছর আগে আঁখি ও বিল্লালের বিয়ে হয়েছিল।

স্থানীয় প্রতিবেশীদের কাছ থেকে জানাযায়, গত রবিবার সকালে স্বামীর বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় আঁখি। খবর পেয়ে আঁখির বাবা আয়নাল হক পরদিন সোমবার ধর্মপাশা থানায় এ ব্যাপারে সাধারণ ডায়েরি করেন।

ডায়েরিতে উল্লেখ করা হয়, গত ১৫ জানুয়ারি আঁখি স্বামীকে নিয়ে তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাবার বাড়িতে ৩ দিন কটানোর পর সেখান থেকে শশুর বাড়িতে ফেরত আসার আগে স্বামীর সাথে আঁখির কথা কাটাকাটি হয়। এতে আঁখির ছোটভাই মেহেদী হাসান বাধা দিলে আঁখিকে নিখোঁজ করার হুমকি দেয় বিল্লাল। ওইদিনই আঁখি স্বামীর বাড়িতে ফেরত আসে।

আঁখি শশুর বাড়িতে ফেরত আসার পর গত রবিবার সকালে স্বামী বিল্লাল আঁখির পরিবারকে ফোন করে আঁখিকে খোঁজে না পাওয়ার কথা জানায়। পরদিন আঁখির বাবা আয়নাল হক বিল্লালের বিরুদ্ধে আঁখিকে জীবিত বা হত্যা করে কোথাও নিখোঁজ করেছে মর্মে ধর্মপাশা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

এদিকে বুধবার সকালে বিল্লালের বাড়ির অদূরে কংসনদে আঁখির লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আঁখির মরদেহ উদ্ধার করে।

লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরির সময় সাথে ছিলেন, ধর্মপাশা উপজেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পপি আক্তার। তিনি বলেন, আঁখির পিঠে কালো দাগ রয়েছে। বুকের বাম পাশে ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। এছাড়া গলার সামনের অংশ ফোলা।

গৃহবধূর বাবা আয়নাল হক বলেন, টাকার জন্য আমার মেয়েকে নির্যাতন করত বিল্লাল। এর আগে দুইবার টাকা দিয়েছি। এবার টাকা দিতে পারিনি। তাই সে আমার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে নদীতে ফেলে দিয়ে নিখোঁজের নাটক সাজিয়েছে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

গৃহবধূর স্বামী বিল্লালের বড় ভাই খায়রুল মিয়া বলেন, ঘটনা কিভাবে ঘটেছে আমরা জানি না। যেহেতু আমি বাড়িতে থাকি না। তবে আমার ভাই যদি কোন কিছু ঘটিয়ে থাকে তাহলে তাঁর বিচার হোক এটাই আমি চাই।

ধর্মপাশা থানার ওসি মো. শামছুদোহা (পিপিএম) জানান, মৃত্যুর ঘটনাটি রহস্যজনক। ময়নাতদন্তের লাশ জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এদিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর স্বামী বিল্লালকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। দ্রুত ঘটনার রহস্য উদঘাটন করার বিষয়ে আশা প্রকাশ করেন তিনি।