ঢাকা ০৮:০১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শেরপুরে পবিত্র ঈদুল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও আর্থিক সহায়তা দিলেন ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের নির্বাহী সম্পাদক ও এশিয়ান টিভি ভালুকা প্রতিনিধি”মো:কামরুল ইসলাম “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “প্রেসক্লাব ভালুকা “সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের সহ সম্পাদক “সেরাজুর ইসলাম সিরাজ “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo দৈনিক বর্তমান সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক “সুমন মিয়া “পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo “দৈনিক বর্তমান সংবাদের প্রকাশক ও সম্পাদক”মামুন হাসান বিএ”পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা Logo ঈদ আগাম বুকিং কম চায়ের রাজ্য শ্রীমঙ্গলে Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শাহজাদপুর উপজেলা কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদকের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা।

ভোলার প্রমিতা রংতুলির আঁচড়ে হাতে আঁকা পেইন্টিংয়ে পেলো জীবনের সফলতা

নুরুল আমিন, বিশেষ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ১২:৪০:৩০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩ ১৩৩ বার পড়া হয়েছে

নুরুল আমিন, বিশেষ প্রতিনিধি

দ্বীপ জেলা ভোলার একজন নারী উদ্যোক্তা প্রমিতা এনি। নিজের তৈরি পোশাকে তিনি নিজেই সুন্দর সুন্দর ডিজাইন করেন। একজন উদ্যোক্তা হিসেবে নিজের তৈরিকৃত পণ্য অনলাইন ও অফলাইনে বিক্রি করে মাসে আয় করছেন কয়েক হাজার টাকা। সংসারের কাজের ফাঁকে ঘরে বসে তৈরি পোশাকে নিপুণ হাতে অনুপম চিত্রকর্মের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলছেন নান্দনিকতার ছোঁয়া। ভোলা জেলার উপজেলা সদরের বাপ্তা ইউনিয়নের মুছাকান্দি গ্রামের বাসিন্দা তিনি। নারী উদ্যেক্তা প্রমিতা এনি হ্যান্ড পেইনটিংয়ের মাধ্যমে স্বনির্ভরতা অর্জন করেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রমিতা একজন বিধবা নারী। একটু একটু করে প্রমিতার সুনাম ছড়িয়ে পড়তে থাকে। ২০২০ সালে তার স্বামী মারা যায়। তখন সংসার চালানো এবং ছেলেমেয়ের লেখাপড়া নিয়ে বিপাকে পড়েন তিনি। কারণ সংসারে হাল ধরার মতো কেউ নেই। জীবন যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন প্রমিতা। তিনি ঘরে বসে একসময় ব্লক বটিকের কাজ করতেন। তারপর ইন্টারনেটে দেখে দেখে রংতুলি দিয়ে নিজে নিজে কাপড়ের উপরে বিভিন্ন ডিজাইন করা শুরু করেন। এভাবে রংতুলির সাথে তার গভীর সখ্যতা গড়ে ওঠে। তিনি হয়ে ওঠেন নিপুণ কারিগর।

প্রমিতা নিজের শ্রম ও মেধা কাজে লাগিয়ে গড়ে তুলেছেন উৎপলাক্ষী বাই ইউএন্ডপি নামে নিজের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। তিনি অনলাইন ও অফলাইনে অর্ডার নেন এবং সাপ্লাই দেন। তিনি এখন সফল উদ্যোক্তা। তার তৈরি ও পেইন্ট করা শাড়ি, পাঞ্জাবি, থ্রি-পিস, টু-পিস, ওয়ান-পিস, বেডশিট, বালিশের কাভারসহ বিভিন্ন পণ্যের বেশ চাহিদা তৈরি হয়েছে। ক্রেতাদের অর্ডার করা পছন্দ অনুয়ায়ী নানা ডিজাইনের পোশাক পেইন্ট করে সরবরাহ করে থাকেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। তাই আগামীতে আরো বৃহৎ পরিসরে কাজ করার স্বপ্ন দেখেন এই নারী।

সম্প্রতি তিনি স্মার্ট নারী উদ্যেক্তা হিসেবে ৫০ হাজার টাকার সরকারি অনুদান পেয়েছেন। এছাড়া বেসরকারিভাবে পেয়েছেন আরো ২৫ হাজার টাকা। এটি তার কাজের আগ্রহ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। ক্রমশই তার কর্ম পরিধি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি বেশ ভালো আছেন। সফল উদ্যোক্তা প্রমিতা সম্পর্কে সাংবাদিক হুসেইন আহমেদ মৃধা বলেন, প্রমিতার হাতের কাজের মান অনেক উন্নত ও রুচিশীল। তাকে দেখে এলাকার অনেক নারীই এখন এই পেশায় আগ্রহী হয়ে উঠছেন। আমরা তাকে সব ধরণের সহায়তা করে আসছি।

ভোলার সাংবাদিক জিলন বলেন, প্রমিতার সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে তার কর্মগুণের কারণে। জীবন সংগ্রামে সে সফল। আমাদের সমাজের জন্য সে একটি উদাহরণ।
প্রমিতা এনির এমন উদ্যোগকে স্বাগত জনিয়ে ভোলা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, প্রমিতা যে কাজ করছেন তা অনান্য নারীদের জন্য একটা দৃষ্টান্ত। এর মাধ্যমে তিনি যেমন স্বাবলম্বি হয়েছেন তেমনি অন্যদেরও অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছেন। এমন উদ্যোগ অনান্য নারীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে নারীরা আরো বেশি আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠবে।

ট্যাগস :
Translate »

ভোলার প্রমিতা রংতুলির আঁচড়ে হাতে আঁকা পেইন্টিংয়ে পেলো জীবনের সফলতা

আপডেট সময় : ১২:৪০:৩০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩

নুরুল আমিন, বিশেষ প্রতিনিধি

দ্বীপ জেলা ভোলার একজন নারী উদ্যোক্তা প্রমিতা এনি। নিজের তৈরি পোশাকে তিনি নিজেই সুন্দর সুন্দর ডিজাইন করেন। একজন উদ্যোক্তা হিসেবে নিজের তৈরিকৃত পণ্য অনলাইন ও অফলাইনে বিক্রি করে মাসে আয় করছেন কয়েক হাজার টাকা। সংসারের কাজের ফাঁকে ঘরে বসে তৈরি পোশাকে নিপুণ হাতে অনুপম চিত্রকর্মের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলছেন নান্দনিকতার ছোঁয়া। ভোলা জেলার উপজেলা সদরের বাপ্তা ইউনিয়নের মুছাকান্দি গ্রামের বাসিন্দা তিনি। নারী উদ্যেক্তা প্রমিতা এনি হ্যান্ড পেইনটিংয়ের মাধ্যমে স্বনির্ভরতা অর্জন করেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রমিতা একজন বিধবা নারী। একটু একটু করে প্রমিতার সুনাম ছড়িয়ে পড়তে থাকে। ২০২০ সালে তার স্বামী মারা যায়। তখন সংসার চালানো এবং ছেলেমেয়ের লেখাপড়া নিয়ে বিপাকে পড়েন তিনি। কারণ সংসারে হাল ধরার মতো কেউ নেই। জীবন যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন প্রমিতা। তিনি ঘরে বসে একসময় ব্লক বটিকের কাজ করতেন। তারপর ইন্টারনেটে দেখে দেখে রংতুলি দিয়ে নিজে নিজে কাপড়ের উপরে বিভিন্ন ডিজাইন করা শুরু করেন। এভাবে রংতুলির সাথে তার গভীর সখ্যতা গড়ে ওঠে। তিনি হয়ে ওঠেন নিপুণ কারিগর।

প্রমিতা নিজের শ্রম ও মেধা কাজে লাগিয়ে গড়ে তুলেছেন উৎপলাক্ষী বাই ইউএন্ডপি নামে নিজের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। তিনি অনলাইন ও অফলাইনে অর্ডার নেন এবং সাপ্লাই দেন। তিনি এখন সফল উদ্যোক্তা। তার তৈরি ও পেইন্ট করা শাড়ি, পাঞ্জাবি, থ্রি-পিস, টু-পিস, ওয়ান-পিস, বেডশিট, বালিশের কাভারসহ বিভিন্ন পণ্যের বেশ চাহিদা তৈরি হয়েছে। ক্রেতাদের অর্ডার করা পছন্দ অনুয়ায়ী নানা ডিজাইনের পোশাক পেইন্ট করে সরবরাহ করে থাকেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। তাই আগামীতে আরো বৃহৎ পরিসরে কাজ করার স্বপ্ন দেখেন এই নারী।

সম্প্রতি তিনি স্মার্ট নারী উদ্যেক্তা হিসেবে ৫০ হাজার টাকার সরকারি অনুদান পেয়েছেন। এছাড়া বেসরকারিভাবে পেয়েছেন আরো ২৫ হাজার টাকা। এটি তার কাজের আগ্রহ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। ক্রমশই তার কর্ম পরিধি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি বেশ ভালো আছেন। সফল উদ্যোক্তা প্রমিতা সম্পর্কে সাংবাদিক হুসেইন আহমেদ মৃধা বলেন, প্রমিতার হাতের কাজের মান অনেক উন্নত ও রুচিশীল। তাকে দেখে এলাকার অনেক নারীই এখন এই পেশায় আগ্রহী হয়ে উঠছেন। আমরা তাকে সব ধরণের সহায়তা করে আসছি।

ভোলার সাংবাদিক জিলন বলেন, প্রমিতার সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে তার কর্মগুণের কারণে। জীবন সংগ্রামে সে সফল। আমাদের সমাজের জন্য সে একটি উদাহরণ।
প্রমিতা এনির এমন উদ্যোগকে স্বাগত জনিয়ে ভোলা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, প্রমিতা যে কাজ করছেন তা অনান্য নারীদের জন্য একটা দৃষ্টান্ত। এর মাধ্যমে তিনি যেমন স্বাবলম্বি হয়েছেন তেমনি অন্যদেরও অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছেন। এমন উদ্যোগ অনান্য নারীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে নারীরা আরো বেশি আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠবে।