ঢাকা ১২:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo ময়মনসিংহে মানসিক রোগী রাজিয়া খাতুুন হত্যার রহস্য উদঘাটন ০৩ জন গ্রেফতার Logo শ্রীমঙ্গলে অর্ধশতাধিক ছিন্নমূলে ঈদ উপহার দিলো ওয়ার্ক ফর হিউম্যানিটি Logo ফাজিলপুরে হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্রদের জন্য মুসলিম এইড বাংলাদেশ (MAB) এর কুরবানি কর্মসূচী-২০২৪ Logo শুকনো জায়গার অভাবে, সিলেটে অনেকেই কোরবানী দিতে পারছেন না Logo পুলিশ পরিচয়ে ছিনতায়ের অভিযোগে সাবেক সেনা সদস্য গ্রেফতার Logo কালিয়াকৈরে ডাঃ ডালেম চন্দ্র বর্মনের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত Logo ঈদের আনন্দে প্রবাসীরা কতটুকু হাসি খুশি থাকে Logo ঈদুল আযাহার নামাজ আদায় চকশৈল্যা বাজার ঈদগাহ মাঠে। Logo বিরামপুরে সৌদির সাথে মিল রেখে ১৫টি গ্রামের পরিবারে ঈদুল আজহা উদযাপন Logo শেরপুরে পবিত্র ঈদুল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও আর্থিক সহায়তা দিলেন ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি

ভোলার বোরহানউদ্দিনে নিখোঁজের ৭ দিন পর সন্ধান মিললো ১৬ জেলের 

নুরুল আমিন, ভোলা জেলা প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৮:০০:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩ জুলাই ২০২৩ ২১৩ বার পড়া হয়েছে
নুরুল আমিন, ভোলা জেলা প্রতিনিধি
দ্বীপ জেলা ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার গঙ্গাপুর ইউনিয়নের ১৬ জেলে সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ হওয়ার ৭ দিন পর তাদের সন্ধান মিললো। রবিবার (২ জুলাই) দুপুরে ফিশিং বোটসহ তাদের খোঁজ মিলে।
নিখোঁজ জেলেদের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ জুন সোমবার বোরহানউদ্দিন উপজেলার গঙ্গাপুরের রহমান বদ্দার ও আবুল বদ্দার নামক দুই সহোদর ইঞ্জিন চালিত ৩টি বোট নিয়ে গভীর বঙ্গোপসাগরে ইলিশ শিকারে যায়। পরদিন ২৭ জুন মঙ্গলবার ভোর ৪ টায় তারা প্রচণ্ড ঝড়ের কবলে পড়েন। ওই সময় আবুল বদ্দার ও মাঝিমাল্লারা ২টি বোটসহ তীরে ফিরে আসতে পারলেও নিখোঁজ হন রহমান বদ্দারসহ ১৬ জন জেলে ৷
এ খবর পেয়ে নিখোঁজদের পরিবারে নেমে আসে শোকের ছায়া। পণ্ড হয়ে যায় তাদের ঈদের আনন্দ। তাদের পরিবারের ধারণা ছিল ঝড়ের কবলে পড়ে তারা দূর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। তবে রবিবার ভোরে তাদের ফোনে কল দিয়ে সবাই জীবিত আছেন বলে জানান জেলেরা। এতে শোকাহত পরিবার ফিরে আসে স্বস্তি।
গঙ্গাপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও মৎস্য আড়ৎদার কালাম বদ্দার এবং নিখোঁজ রহমান বদ্দারের বৃদ্ধ বাবা দেলোয়ার হোসেন জানান, ২৬ জুন তার ছেলে ১৬ জন মাঝিমাল্লা নিয়ে চরফ্যাশন উপজেলার নুরাবাদ ঘাট থেকে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে যায়। অপর জেলে আবুল বদ্দার একই উপজেলার সামরাজ ঘাট থেকে ২টি ট্রলার নিয়ে সাগরে যায়। পরদিন ২৭ জুন সাগরে প্রচণ্ড ঝড় ওঠে। আবুল বদ্দার তার মাঝিমাল্লা নিয়ে উপরে আসতে সক্ষম হয়, তবে রহমানসহ ১৬ জেলে ৭ দিনেও ফিরে আসেনি।
তাদের পরিবারকে মোবাইলে জানান, প্রবল ঝড়ে গভীর সমুদ্রে তাদের প্রধান ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায় ৷ পরে বোটে থাকা অন্য ছোটো ইঞ্জিন দিয়ে তারা কূলে আসার চেষ্টা করেছেন ৷ গভীর সাগরে থাকায় তাদের মোবাইল ফোনে নেটওয়ার্ক ছিল না ৷ তাই তাদের কেউই পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেনি ৷ রবিবার ভোরে কূলের কাছাকাছি আসলে ফোনে নেটওয়ার্ক আসে এবং বাড়িতে কল দিয়ে পরিবারকে জানান ৷ তাদের এমন খবরে স্বস্তি ফিরে এসেছে সবার মাঝে ৷ তারা রাতের মধ্যে পরিবারের কাছে ফিরবে বলেও জানান।
নিখোঁজ জেলেরা ছিলেন, গংগাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার বদ্দারের ছেলে ও বোট মালিক রহমান বদ্দার ,৯নং ওয়ার্ডের নুরুল হক মিস্ত্রির ছেলে মাঝি আব্বাস, তাঁর খালু চুন্নু,মামা হাসান, সিদ্দিক তালুকদারের ছেলে নেছার, ৮নং ওয়ার্ডের ইউছুব মাতাব্বর এর ছেলে আকতার,ইয়াকুব মাঝির ছেলে আলামিন,রহিম এর ছেলে ইলিয়াস, রহিম হাওলাদারর ছেলে নজু, শাহাজান এর ছেলে কবির,তাজল মাতাব্বরের ছেলে মুন্না, ইসলাম ডাক্তারের ছেলে কুট্টি,,সাদেক এর ছেলে ইসমাইল, হাবু, ইলিয়াস, আজগর আলী ৷ এদের মধ্যে আজগর আলী কাচিয়া ইউনিয়নের হলেও অন্যরা গংগাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা।
এদিকে আবুল বদ্দার ২টি ট্রলার নিয়ে গতকাল শনিবার দুপুরে হারানোদের খুঁজতে সাগরে যাত্রা শুরু করছেন ৷
নিখোঁজ রহমান বদ্দার, আকতার, সাকিল ও ইউছুবের পরিবারের সদস্যরা জানান, তাদের নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে চোখের ঘুম চলে যায় ৷ সবাই মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরেছেন ৷ তাদের ফিরে আসার খবরে এখন তারা খুশি ৷
গঙ্গাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান মো: রেজাউল করিম বলেন, বিষয়টি খুবই হৃদয়বিদারক ছিল। ৭ দিন নিখোঁজ থাকার পরে তাদের সন্ধান মেলায় সবাই খুশি ৷
ট্যাগস :
Translate »

ভোলার বোরহানউদ্দিনে নিখোঁজের ৭ দিন পর সন্ধান মিললো ১৬ জেলের 

আপডেট সময় : ০৮:০০:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩ জুলাই ২০২৩
নুরুল আমিন, ভোলা জেলা প্রতিনিধি
দ্বীপ জেলা ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার গঙ্গাপুর ইউনিয়নের ১৬ জেলে সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ হওয়ার ৭ দিন পর তাদের সন্ধান মিললো। রবিবার (২ জুলাই) দুপুরে ফিশিং বোটসহ তাদের খোঁজ মিলে।
নিখোঁজ জেলেদের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ জুন সোমবার বোরহানউদ্দিন উপজেলার গঙ্গাপুরের রহমান বদ্দার ও আবুল বদ্দার নামক দুই সহোদর ইঞ্জিন চালিত ৩টি বোট নিয়ে গভীর বঙ্গোপসাগরে ইলিশ শিকারে যায়। পরদিন ২৭ জুন মঙ্গলবার ভোর ৪ টায় তারা প্রচণ্ড ঝড়ের কবলে পড়েন। ওই সময় আবুল বদ্দার ও মাঝিমাল্লারা ২টি বোটসহ তীরে ফিরে আসতে পারলেও নিখোঁজ হন রহমান বদ্দারসহ ১৬ জন জেলে ৷
এ খবর পেয়ে নিখোঁজদের পরিবারে নেমে আসে শোকের ছায়া। পণ্ড হয়ে যায় তাদের ঈদের আনন্দ। তাদের পরিবারের ধারণা ছিল ঝড়ের কবলে পড়ে তারা দূর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। তবে রবিবার ভোরে তাদের ফোনে কল দিয়ে সবাই জীবিত আছেন বলে জানান জেলেরা। এতে শোকাহত পরিবার ফিরে আসে স্বস্তি।
গঙ্গাপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও মৎস্য আড়ৎদার কালাম বদ্দার এবং নিখোঁজ রহমান বদ্দারের বৃদ্ধ বাবা দেলোয়ার হোসেন জানান, ২৬ জুন তার ছেলে ১৬ জন মাঝিমাল্লা নিয়ে চরফ্যাশন উপজেলার নুরাবাদ ঘাট থেকে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে যায়। অপর জেলে আবুল বদ্দার একই উপজেলার সামরাজ ঘাট থেকে ২টি ট্রলার নিয়ে সাগরে যায়। পরদিন ২৭ জুন সাগরে প্রচণ্ড ঝড় ওঠে। আবুল বদ্দার তার মাঝিমাল্লা নিয়ে উপরে আসতে সক্ষম হয়, তবে রহমানসহ ১৬ জেলে ৭ দিনেও ফিরে আসেনি।
তাদের পরিবারকে মোবাইলে জানান, প্রবল ঝড়ে গভীর সমুদ্রে তাদের প্রধান ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায় ৷ পরে বোটে থাকা অন্য ছোটো ইঞ্জিন দিয়ে তারা কূলে আসার চেষ্টা করেছেন ৷ গভীর সাগরে থাকায় তাদের মোবাইল ফোনে নেটওয়ার্ক ছিল না ৷ তাই তাদের কেউই পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেনি ৷ রবিবার ভোরে কূলের কাছাকাছি আসলে ফোনে নেটওয়ার্ক আসে এবং বাড়িতে কল দিয়ে পরিবারকে জানান ৷ তাদের এমন খবরে স্বস্তি ফিরে এসেছে সবার মাঝে ৷ তারা রাতের মধ্যে পরিবারের কাছে ফিরবে বলেও জানান।
নিখোঁজ জেলেরা ছিলেন, গংগাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার বদ্দারের ছেলে ও বোট মালিক রহমান বদ্দার ,৯নং ওয়ার্ডের নুরুল হক মিস্ত্রির ছেলে মাঝি আব্বাস, তাঁর খালু চুন্নু,মামা হাসান, সিদ্দিক তালুকদারের ছেলে নেছার, ৮নং ওয়ার্ডের ইউছুব মাতাব্বর এর ছেলে আকতার,ইয়াকুব মাঝির ছেলে আলামিন,রহিম এর ছেলে ইলিয়াস, রহিম হাওলাদারর ছেলে নজু, শাহাজান এর ছেলে কবির,তাজল মাতাব্বরের ছেলে মুন্না, ইসলাম ডাক্তারের ছেলে কুট্টি,,সাদেক এর ছেলে ইসমাইল, হাবু, ইলিয়াস, আজগর আলী ৷ এদের মধ্যে আজগর আলী কাচিয়া ইউনিয়নের হলেও অন্যরা গংগাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা।
এদিকে আবুল বদ্দার ২টি ট্রলার নিয়ে গতকাল শনিবার দুপুরে হারানোদের খুঁজতে সাগরে যাত্রা শুরু করছেন ৷
নিখোঁজ রহমান বদ্দার, আকতার, সাকিল ও ইউছুবের পরিবারের সদস্যরা জানান, তাদের নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে চোখের ঘুম চলে যায় ৷ সবাই মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরেছেন ৷ তাদের ফিরে আসার খবরে এখন তারা খুশি ৷
গঙ্গাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান মো: রেজাউল করিম বলেন, বিষয়টি খুবই হৃদয়বিদারক ছিল। ৭ দিন নিখোঁজ থাকার পরে তাদের সন্ধান মেলায় সবাই খুশি ৷