ঢাকা ১২:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo সন্ত্রাসীদের গুলিতে দিঘলিয়ার সাবেক ইউপি সদস্য নিহত Logo যুব মাতৃ সেবক সামাজিক সংগঠন শিবপুর বটতলী বাজার ফেনী Logo শ্রীমঙ্গলে গৃহপালিত কুকুরের সঙ্গে বুনো শুকরের বন্ধুত্ব Logo শাহজাদপুরে ৬ দিনব্যাপী কৃষি মেলার শুভ উদ্বোধন Logo বিরামপুরে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরন Logo বিরামপুরের সর্প দর্শন বিষয়ক সচেতনতা মূলক সেমিনার অনুষ্ঠিত Logo পলাশবাড়ীতে বিআরডিবি সুফলভুগি সদস্যদের তিন দিনব্যাপী দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণের শুভ উদ্বোধন Logo ধর্মপাশায় ভুয়া প্রকল্পের বরাদ্দ দেখিয়ে 10 টন চাল আত্মসাৎ এর অভিযোগ Logo কুড়িগ্রামের ভোগ ডাঙ্গায় ওষুধ বাকি না দেওয়ায় ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ সেনা সদস্যের বিরুদ্ধে Logo বাংলাদেশের সকল অর্জন আওয়ামী লীগের হাত ধরে এসেছে: এমপি আলহাজ্ব এস এম আল মামুন

রামেক হাসপাতালে ভূয়া চিকিৎসক গ্রেফতার

মোঃ মেহেদী হাসান মুন্না, রাজশাহী ব্যুরো
  • আপডেট সময় : ০৩:২৪:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩ ৯৯ বার পড়া হয়েছে

মোঃ মেহেদী হাসান মুন্না, রাজশাহী ব্যুরো: শরীরে দামি পোশাক। তার ওপর চিকিৎসকদের ব্যবহৃত অ্যাপ্রোন। কাঁধে ঝুলানো এসট্যাথেসকোপ।গলায় রয়েছে আইডি কার্ড। আর হাতের আঙ্গুলে বেশ কয়েকটি স্বণের আংটি। যে কেউ প্রথম দেখায় মনে করতে পারেন তিনি একজন এমবিবিএস চিকিৎসক। কিন্তু আসলে তিনি কোন চিকিৎসক নন।

ভূয়া এসব আইডি কার্ড ব্যবহার করে প্রায়ই আসতেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে।

অবশেষে শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে ওই ভূয়া চিকিৎসককে আটক করেছেন রামেক হাসপাতালের দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা।

গ্রেফতারকৃত ওই ভুয়া চিকিৎসকের নাম সামিউর রহমান (২৭) তিনি নগরীর উপ ভদ্রা এলাকার রাশেদুর রহমানের ছেলে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সিনিয়র নার্স গোলাম মোস্তফা জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে অ্যাপ্রোন পরিহিত অবস্থায় জরুরী বিভাগে ওটি করার জন্য ঢুকেন ওই ভুয়া চিকিৎসক।

এসময় কত্যর্বরত নার্সদের কাছে মাস্ক ও ওটির পোশাক চান। সেগুলো দিতে না পারায় নার্সদের ওপর তিনি  চড়াও হোন।

পরে ওই ব্যাক্তির আচারণে সন্দেহ হলে তাকে পুলিশে দেওয়া হয়। তবে ওই ভূয়া চিকিৎসকের দাবি, তাঁর স্বপ্ন ছিলো বড় চিকিৎসক হওয়া। কিন্তু পারিবারিক সমস্যার কারণে সেটি হয়ে ওঠেনি।

তাই পরিবার ও আত্বীয় স্বজনদের তিনি রামেক হাসপাতালের একজন চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে আসতেন সম্প্রতি তিনি এই পরিচয়ে এক নারীকে বিয়েও করেছেন।

এছাড়াও তিনি মাঝে মাঝে শখের বসে এসে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতেন।

এদিকে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আনসার (পিসি) শহিদুল ইসলাম জানান, প্রথমে গ্রেফতারকৃত সামিউর রহমান ভুয়া চিকিৎসক হিসেবে নিজেকে স্বীকার না করলেও পরে জানান তিনি কোন চিকিৎসক নন। এরপর তাকে আটক করে রামেক হাসপাতালে পুলিশ বক্সে নিয়ে আসা হয়।

উল্লেখ্য গ্রেফতারকৃত ভূয়া চিকিৎসক সামিউর রহমান নিজেকে ইসলামী ব্যাংক ইনিস্টিটিউট অফ হেলথ টেকনোলোজির শিক্ষার্থী দাবি করলেও সেটির পক্ষেও কোন প্রমাণ দেখাতে পারেনি তিনি।

Translate »

রামেক হাসপাতালে ভূয়া চিকিৎসক গ্রেফতার

আপডেট সময় : ০৩:২৪:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩

মোঃ মেহেদী হাসান মুন্না, রাজশাহী ব্যুরো: শরীরে দামি পোশাক। তার ওপর চিকিৎসকদের ব্যবহৃত অ্যাপ্রোন। কাঁধে ঝুলানো এসট্যাথেসকোপ।গলায় রয়েছে আইডি কার্ড। আর হাতের আঙ্গুলে বেশ কয়েকটি স্বণের আংটি। যে কেউ প্রথম দেখায় মনে করতে পারেন তিনি একজন এমবিবিএস চিকিৎসক। কিন্তু আসলে তিনি কোন চিকিৎসক নন।

ভূয়া এসব আইডি কার্ড ব্যবহার করে প্রায়ই আসতেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে।

অবশেষে শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে ওই ভূয়া চিকিৎসককে আটক করেছেন রামেক হাসপাতালের দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা।

গ্রেফতারকৃত ওই ভুয়া চিকিৎসকের নাম সামিউর রহমান (২৭) তিনি নগরীর উপ ভদ্রা এলাকার রাশেদুর রহমানের ছেলে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সিনিয়র নার্স গোলাম মোস্তফা জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে অ্যাপ্রোন পরিহিত অবস্থায় জরুরী বিভাগে ওটি করার জন্য ঢুকেন ওই ভুয়া চিকিৎসক।

এসময় কত্যর্বরত নার্সদের কাছে মাস্ক ও ওটির পোশাক চান। সেগুলো দিতে না পারায় নার্সদের ওপর তিনি  চড়াও হোন।

পরে ওই ব্যাক্তির আচারণে সন্দেহ হলে তাকে পুলিশে দেওয়া হয়। তবে ওই ভূয়া চিকিৎসকের দাবি, তাঁর স্বপ্ন ছিলো বড় চিকিৎসক হওয়া। কিন্তু পারিবারিক সমস্যার কারণে সেটি হয়ে ওঠেনি।

তাই পরিবার ও আত্বীয় স্বজনদের তিনি রামেক হাসপাতালের একজন চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে আসতেন সম্প্রতি তিনি এই পরিচয়ে এক নারীকে বিয়েও করেছেন।

এছাড়াও তিনি মাঝে মাঝে শখের বসে এসে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতেন।

এদিকে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আনসার (পিসি) শহিদুল ইসলাম জানান, প্রথমে গ্রেফতারকৃত সামিউর রহমান ভুয়া চিকিৎসক হিসেবে নিজেকে স্বীকার না করলেও পরে জানান তিনি কোন চিকিৎসক নন। এরপর তাকে আটক করে রামেক হাসপাতালে পুলিশ বক্সে নিয়ে আসা হয়।

উল্লেখ্য গ্রেফতারকৃত ভূয়া চিকিৎসক সামিউর রহমান নিজেকে ইসলামী ব্যাংক ইনিস্টিটিউট অফ হেলথ টেকনোলোজির শিক্ষার্থী দাবি করলেও সেটির পক্ষেও কোন প্রমাণ দেখাতে পারেনি তিনি।